1. ruhul.lemon@gmail.com : admin :
  2. tanjid.fmphs@gmail.com : তানজিদ শুভ্র : তানজিদ শুভ্র
  3. contact.mdrakib@gmail.com : Rakib Howlader : Rakib Howlader
বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৬:৩৫ অপরাহ্ন

করোনা মহামারী নিয়ে আতিক রহমানের লেখা ছোটগল্প “অসমাপ্ত”

  • প্রকাশ: শুক্রবার, ৮ মে, ২০২০
  • ৩৯৫ বার পঠিত

অসমাপ্ত

আতিক রহমান

ক্ষানিকটা বাদে আবারো ফোন দিল রিনা। সেই পুরোনো কন্ঠটা আজও ফোনে আছে কিন্তু কেমন জানি কথা বলতে কষ্ট হচ্ছে রাহুলের। সবে তো মাত্র বছর দুয়েক হলো সম্পর্কের তাদের। দু জনেই কলেজ পেরিয়ে ভার্সিটিতে সবে মাত্র উঠলো। এই তো প্রেম করার সুযোগ টা অনেক বেড়ে গিয়েছিল তাদের,কলেজের গন্ডি পেরুতেই রিনা অনেক স্বাধীনতা পেল যে। বেশিদিন যেত পারল না বিশ্ববিদ্যালয়ে, এইতো যেদিন ক্লাস শুরু হলো তার এক সপ্তাহ পরে বন্ধ হয়ে গেল। পৃথিবী অসুস্থ হয়ে পড়ল যে,কোরোনা নামক মহামারীতে পুরো পৃথিবী অচল পড়ল। ভার্সিটি বন্ধ হওয়াতে রিনা বাবার সাথে গ্রামে যে গেল আর আসতে পারল না, ট্রান্সপোর্ট সব বন্ধ হওয়ার কারণে। বাসায় থাকতে থাকতে এভাবেই ১ মাস পার হলো। টিউশনি করে খরচ চালাতো যে রাহুল, ১ মাস হলো টিউশনি নেই। জমানো হালকা কিছু টাকা দিয়ে যা ও চলেছিল কিছুদিন, তারপর এদিক সেদিক কিছু টাকা নিয়ে আর কয়েকটা দিন পার করতে পারলে ও যে আর হচ্ছে না। দেশ আজ ৪৫ দিন ধরে বন্ধ হয়ে রইল। রিনা ই তো ছিল আপন বলতে, পর পর দু বছরে বাবা-মা হারানো রাহুল আজ ৪ বছর ধরে নিজের খেয়াল নিজে ই রাখে। রোজার দুদিন ধরে সে ঠিক মতো খেতে পারছে না। যাওয়ার আগে অনেক জোর করেও রিনা টাকা দিতে পারে নি। খাবারের সন্ধানে বের হওয়া ছাড়া যেন রাহুলের আর কোনো উপায় ছিল না। গত দিন চারেক ধরে রাহুলের শরীর বড্ড খারাপ যাচ্ছে। রিনা অবশ্য তা বুঝে উঠতে পারে। শুকনো কাশি,হালকা জ্বরের সাথে শ্বাসকষ্ট সে আসলেই বুঝে উঠতে পারে নি কি হচ্ছে। সামান্য জ্বর ভেবে নাপা ও খেয়েছিল দুদিন। দুয়েক দিন পরে যেন শরীর আরো খারাপ হলে,রিনার জোরে ডাক্তার কাছে যাওয়া হলো। করোনা টেস্ট করে বাড়ি এসে রাহুল যেন আর বুঝে উঠতে পারল না কি করবে সে, ভয়ে তার মাথায় কতো ভুল চিন্তা ভাবনা আসা শুরু হলো। দুই মিনিট ধরে রিং হচ্ছে রাহুলের যেন অনুভব ই নেই এদিকে,রিনা তো ফোনের পর ফোন দিয়ে ই যাচ্ছে। ফোন ধরার পর রিনা যেই চিৎকার করবে, রাহুলের আতঙ্কিত কন্ঠে রিনা শান্ত স্বরে জিজ্ঞেস করলো,”ডাক্তার কি বললো?” রাহুল নিজেকে সামলিয়ে নিলো মুহুর্তে,”সামান্য জ্বর,বাসায় থাকতে বললো। রিনা আজ আর কথা না বলি। ডাক্তার খাবার খেয়ে রেস্ট নিতে বলেছে, ঘুম থেকে উঠে কথা বলবো।” মেয়েটাকে শুধু শুধু পেরেশানি করে লাভ কি, নেগেটিভ ও তো আসতে পারে। খাবার খেয়ে ঘুমোতে বললো যে, খাবে কি? শরীর আরো যেন খারাপ হতে চলছে। জ্বর আর শ্বাসকষ্টে সে যেন কিছু করার শক্তিই পাচ্ছে না। রিনা ছাড়া আপন বলতে রাহুলের আর কেও নেই। যদি করোনাতে মৃত্য হয়, সে কি আর শেষ বারের মতো রিনাকে দেখতে পাবে। রিনা না সবসময়ই বলতো দুজনের কেও যদি আগে মারা যায়, তাহলে অপরজন প্রতিদিন ফুল দিয়ে আসবে। রাহুল যদি মারা যায় রিনা কি জানতে পারবে তার কবর কোথায় দেওয়া হয়েছে? রিনার কি আর ফুল দেওয়া হবে, ভাবতে ভাবতে চোখের কোঠরে পানি চলে আসে রাহুলের, সাথে ঘুম ও। মধ্যরাতে রিনার ফোনে জেগে উঠে রাহুল, শরীর যেন ভালোই হচ্ছে না। সেহেরী খেয়ে রোজা রাখার মতো শক্তি একদমই নেই। রিনার বার বার জিজ্ঞাসা রাহুল এড়িয়ে যেতে না পেরে শেষ এ ধমক দিয়ে ফোন রেখে দেয়। শরীর খারাপ তার উপর এতো কথা রাহুলের একদম ভালোই লাগছে না। রিনাকেও বলা হচ্ছে না খামোখাই হয়ত অনেক চিন্তা করবে। রাহুল রিনাকে ধমক দিলেই রিনা কান্না করে দেয়, আজও হয়ত করছে। একবার রাস্তায় রিনাকে ধমক দেওয়াতে জড়িয়ে ধরে আহারে বাচ্চাদের মতো কি যে কান্না করল, ভেবেই রাহুলের মুখে মুচকি হাসি চলে এলো। সকাল হতেই ঘুম ভাঙলো মেসেজের শব্দে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে। রাহুলের করোনা পসিটিভ, হাসপাতালে যত দ্রুত সম্ভব সে যেন যায়। রাহুল আর যেন কিছুই চিন্তা করতে পারল না। তার সব ভয় যেন সত্যি হয়ে গেল, এক মুহুর্তে সব স্বপ্ন চূড়মাড়। দুপুর হতেই রাহুলের মেসে পুলিশ, আর্মি চলে এলো। রিনাকে দেওয়া তার শেষ ফোন ও তখন। “রিনা, রিনা আমাদের কি আবার দেখা হবে? রিনা দেখা হবে তো!” “এমন কেনো বলছো? কি হয়েছে?” “ততদিনে যদি আমি বেচে না থাকি। না থাকি রিনা!” “কি সমস্যা তোমার? এইসব আজেবাজে কি বকছো?” “জানি না, রিনা, যেন বেচে থাকি।” ওপারের কান্নার শব্দে ফোন কেটে দিল রাহুল, আর কথা হলো না তাদের। মহামারীর যুদ্বে রাহুল জয়ী হবে কিনা জানে না। তার কবর রিনা কখনো খুঁজে পাবে কিনা তাও রাহুল জানে না। রিনাই তো আপন ছিল, কবর টা যদি না জানে যিয়ারত করবে কি করে? আমার পছন্দের শিমুলটা কি কখনোই রিনার হাত থেকে আমি পাবো আর?

বার্তা টাইমস / অনুপ চক্রবর্তী / সাহিত্য প্রতিনিধি

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো বার্তা..
নিঃস্বত্ত্ব © সংগৃহিত তথ্যগুলোর স্বত্ব সম্পূর্ণভাবে সোর্স সাইটের। আমাদের নিজস্ব কোন স্বত্ব নেই।

কারিগরি সহায়তায় WhatHappen